এইমাত্র পাওয়া

টেকনাফের ইয়াবা ব্যবসায়ী জিন্নাত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করতে চাই

নভেম্বর ৩, ২০১৮

বিশেষ প্রতিবেদক:: ইয়াবার ভয়াল আগ্রাসন থেকে মুক্ত হয়ে সুস্থ জীবনে ফিরে আসতে চায় টেকনাফের মাদক ব্যবসায়ী জিন্নাত আলী। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছ থেকে সঠিক পরামর্শ ও সহযোগিতা পেলে আত্মসমর্পণ করতে চাই তিনি। বিগত অপরাধের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া যে কোন সিদ্ধান্ত ও শাস্তি গ্রহণ করেই আত্মসমর্পণের জন্য এখন প্রস্তুত রয়ছে বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। শুধু জিন্নাত আলী নয়, তারমত প্রায় অর্ধশত ইয়াবা সম্পৃক্ত ব্যক্তি একই প্রস্তাব করছেন বিভিন্ন মহলে। আত্মসমর্পণিচ্ছুকদের মধ্যে কেউ তালিকাভূক্ত, কেউ বাহক, কেউ সেবনকারী আবার কেউ খুচরা বিক্রেতাও রয়েছে।
গত ২১ অক্টোবর টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটি ও টেকনাফ পৌর প্রেস ক্লাবের যৗথ উদ্যোগেবনবিশ্রামাগারের সন্মেলনকক্ষে আয়োজিত ‘মাদক ও রোহিঙ্গা সংকট নিরসন’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় কেউ ইয়াবা থেকে মুক্ত হয়ে সুস্থ জীবনে ফিরে আসতে চাইলে সুযোগ আছে কিনা, এমন একটি প্রস্তাবনা উপস্থিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে পেশ করেন টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাইফী।
এসভায় সভাপতিত্ব করেন টেকনাফ পৌর প্রেসক্লাবের সভাপতি ও পৌরসভার প্যানেল মেয়র আব্দুল্লাহ মনির, প্রধান অতিথি ছিলেন টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক মেজর শরীফুল ইসলাম জোমাদ্দার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রণয় চাকমা, প্রথম আলো কক্সবাজার আঞ্চলিক অফিস প্রধান আব্দুল কুদ্দুস রানা, টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও গোয়েন্দারা।
এমন প্রস্তাবে টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন এ প্রস্তাবটি একটি সুন্দর ও নতুন বিষয়, তিনি হাই কমান্ডের সাথে যোগাযোগ করে পরে বলবেন।
সচেতন মহল মনে করেন সুন্দর বনের জলদস্যুরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঠিক পরামর্শ ও সহযোগিতায় আত্মসমর্পণ করেছে, মহেশ খালীর পাহাড়ী ডাকাতরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঠিক পরামর্শ ও সহযোগিতায় আত্মসমর্পণ করেছে, সরকার যেহেতু তাদের জন্য রক্তপাতহীন একটি সুন্দর সমাধান খোঁজে বের করেছে, টেকনাফে যারা মাদকের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে জীবন বিপন্ন করতে বসেছে, তাদের জন্যও একটি নীতিমালা প্রণয়নের মাধ্যমে বিষয়টি বিবেচনা করতে পারেন।

আর্কাইভ

ডিসেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি রবি
« নভে    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

শিরোনাম :