এইমাত্র পাওয়া

সেন্টমার্টিনে ‘ইয়াবা’ উদ্ধার নিয়ে কথা

এপ্রিল ২৪, ২০১৮

সম্পাদকীয়ঃ
২০১৮ ইং সালটা সেন্টমার্টিন দ্বীপ তথা দ্বীপবাসীর জন্য এক অভিশপ্ত সাল। এই দ্বীপ তথা দ্বীপবাসীর রয়েছে ঐতিহ্যগত বহুল প্রচারিত সুনাম ও দ্বীপের পবিত্রতা রক্ষক।

চলমান প্রেক্ষাপট একটা বিষয় নিজের বিবেককে বারবার নাড়া দিয়েই যাচ্ছে।

ফ্যাক্টঃ সেন্টমার্টিন দ্বীপে ইয়াবা উদ্ধার!

বড়ই অদ্ভুত বিষয়! মাঝ সাগরে গ্রেপ্তারবিহীন লক্ষ লক্ষ ইয়াবা উদ্ধার হয়, আর উদ্ধার করে টেকনাফ থেকে বিশেষ বাহিনী গিয়ে। এদিকে ইলেক্ট্রনিক, প্রিন্টিং, অনলাইন ইত্যাদি বিভিন্ন গণমাধ্যমে শিরোনাম হয় "সেন্টমার্টিনে (এত লক্ষ) ইয়াবা উদ্ধার"

আমার মতে এমন শিরোনাম দ্বীপবাসীর ঐতিহ্যগত সুনামকে ক্ষুণ্ণ করে। কেননা, আমিই দ্বীপবাসী হিসেবে বলা নয়, এই দ্বীপটি বাংলাদেশের একমাত্র ১০০% মুসলিমের এলাকা বা দ্বীপ।বসবাসকারী সবাই একে অপরের আত্মীয়তা।সকলেই আল্লাহ ভিতু ও ধর্ম প্রিয় মুসলিম। তাদের জীবিকা মৎস আহরণ ও পর্যটন ব্যবসার উপর নির্ভরশীল। যেখানে নেই কোন হানাহানি, রাহাজানি, খুনাখুনি, চোর, চিন্তাকারী, ডাকাতি ইত্যাদি।বলতে গেলে পুরো পৃথিবীর একমাত্র নিশ্চিন্ত চলাচলের স্বাধীন এলাকা।

এই দ্বীপে নেই কোন অট্টালিকা বড়লোক। সকলেই নিম্ন মধ্যভিত্তে ও নিম্নে ভিত্তে বাস করে।নেই কোন স্থানীয় মাদকদ্রব্যের বড় সিন্ডিকেট কিংবা ইয়াবার টপ গডফাদার। যেখানে নেই কোন সামর্থ্য বড় বড় ইয়াবার চালান আমদানি করার। তবে প্রশাসনিকভাবে তালিকাভুক্ত মুষ্টিমেয় স্থানীয় কয়েকজন কুচক্রী সদস্য ব্যতীত। তাও তারা টপ গডফাদারদের কন্টাক্টচুয়েল/সহযোগী হিসেবে অবৈতনিক কাজ চালিয়ে যায়।

কিছু সময় আগেও সেন্টমার্টিনের পরিচয় দিতেও বড়ই গর্ববোধ হত। কেননা, সেন্টমার্টিন পরিচয়ে ছিল ঐতিহ্যগত সুনাম, সেই সাথে সম্মান।

২০১৮ ইং সালে বিভিন্ন ব্যক্তিবিশেষ, প্রশাসন, জায়গা কিংবা যাতায়াতে সেন্টমার্টিন পরিচয় পেলেও তারা সেই লক্ষ লক্ষ ইয়াবা উদ্ধারের বাণী শুনিয়ে দেয়। তখন নির্লজ্জতা ও নীরবচারী হওয়া ছাড়া আর কোন পন্থা থাকেনা।

সকল গণমাধ্যমের সম্পাদক ও সাংবাদিক বন্ধুগণদের প্রতি শ্রদ্ধাবান অনুরোধ, আপনারা দেশের একমাত্র মুসলিম ও প্রবাল দ্বীপের ঐতিহ্যগত সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখতে সংবাদ কভার, এডিটিং,  প্রকাশনা বস্তুনিষ্ঠার সাথে করলে আমরা সেন্টমার্টিন বাসী আপনাদের কাছে মহান কৃতজ্ঞ থাকিব।

বিশেষ করে "শিরোনাম" সেন্টমার্টিনে ইয়াবা উদ্ধার না লিখে "সেন্টমার্টিনের দূরবর্তী/নিকটবর্তী সাগর থেকে উদ্ধার" লিখতে পারেন। শুধু পরামর্শক্রমে বলা। ভুল হলে ক্ষমাপ্রার্থনা।

আর সকল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের প্রতি আমার অন্তর্জলের অনুরোধ, আপনারা সাংবাদিকগণদের কাছে আটক/উদ্ধারের নির্দিষ্ট জায়গা উল্লেখ করে সুষ্ঠু ও সঠিক তথ্য জানান। আমাদের দ্বীপের ঐতিহ্যগত সুনাম ও পবিত্রতা রক্ষার্থে আপনাদের কাছে তালিকাভুক্ত হতে দ্বীপের সঠিক অপরাধীদের চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

এম কেফায়েত উল্লাহ খান
(বিবিএ, এমবিএ, এলএলবি)

সম্পাদক ও প্রকাশক
সেন্টমার্টিন বিডি নিউজ

সভাপতি
বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, সেন্টমার্টিন শাখা

শিক্ষানবিশ আইনজীবী
ঢাকা জজকোর্ট।।

আর্কাইভ

নভেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি রবি
« অক্টো    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

শিরোনাম :