এইমাত্র পাওয়া

পিছিয়ে পড়া পৌর-বাসীর আকাঙ্খা পূরণ করবেন পৌরপিতা মুজিব!

জুলাই ৩১, ২০১৮

‘নবনির্বাচিত পৌরপিতা মুজিবের কাছে পৌরবাসীর যত প্রত্যাশা’

হেলাল উদ্দিন সাগ,এসবিএনঃ

পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত, দেশের লক্ষ লক্ষ ভ্রমণ পিয়াসীদের অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র পর্যটন নগরী কক্সবাজার। সারা দেশের মানুষ এই কক্সবাজার নিয়ে আলাদা চিন্তা করে। সরকারের রাজস্ব খাতের বিশাল একটি অংশ এই পর্যটন খাত থেকেই আসে। বিশ্বের নামীদামী অনেক দেশই পর্যটন শিল্পকে কাজে লাগিয়ে দেশের অর্থনীতিতে বিপ্লবী পরিবর্তন এনেছে। বাংলাদেশ সেসব দেশের তুলনায় অনেক পিছিয়ে। সম্ভাবনাময় বিশাল সমুদ্র সৈকতকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে পারেননি। আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, নেতাদের স্বেচ্ছাচারিতা, সীমাহীন দুর্নীতির কারণে এই অঞ্চলের মানুষ তাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষে পৌছাতে পারেনি। কিন্তু আর না। তাই তারা বিশাল ভোটের ব্যবধানে এই অঞ্চলের উন্নয়নের ফেরিওয়ালা হিসেবে পরিচিত আওয়ামীলীগের প্রার্থী মুজিবুর রহমানকে জয়যুক্ত করেছেন।মোট ভোটারের প্রায় ৫০% ভোট দিয়ে তারা ‘মুজিব বদ্দা’কে মেয়র নির্বাচিত করেছেন বলে জানান ভোটাররা। এজন্যই তাদের আশা-আকাঙ্খাও একটু বেশি। প্রায় ৮ বছর পর গত ২৫ জুলাই কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ৪১২৫৫ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান। মুজিবকে প্রাপ্ত ভোটের প্রায় ৭৫% ভোট দিয়েছেন কক্সবাজার পৌরসভার ভোটাররা।

নতুন মেয়রের কাছে পৌরবাসীর আকাংখা কি? তা জানতে কথা হয় বেশ ক’জন সচেতন নাগরিকদের সাথে। ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অফ কক্সবাজার (টুয়াক)’র সভাপতি তোফায়েল আহমদ বলেন, কক্সবাজার পৌরসভার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে নির্দিষ্ট জায়গা না থাকায় যত্রতত্র আবর্জনা ফেলায় পৌরশহরের পরিবেশ বিনষ্ট হচ্ছে। পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত পেয়েও আমরা যথাযথ কাজে লাগাতে পারছিনা। সমুদ্র সৈকতে নেই কোন নির্দিষ্ট সুইমিং’র ব্যবস্থা। নেই কোন নির্দিষ্ট পরিকল্পনা। পর্যটকদের নিরাপত্তায়ও নেই সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ। ফলে বখাটেদের উপদ্রবে বিরক্তবোধ হচ্ছে পর্যটক। এতে করে সম্ভাবনাময় পর্যটক শিল্পের ব্যাঘাত ঘটবে বলে জানান তিনি।

কক্সবাজার পৌরসভাকে একটি আধুনিক মডেল পৌরসভা বিনির্মাণের জন্য মত-পেশ করেন শহর জাতীয় পার্টির নেতা নাজিম উদ্দিন। তিনি বলেন, পৌরশহরকে দুর্গন্ধমুক্ত করতে আবর্জনা ফেলার জন্য ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ, বর্ষায় ডুবে যাওয়া পৌরশহরের জলাবদ্ধতা দূর করতে পরিকল্পনামাফিক ড্রেন নির্মাণ, আবাসন খাতে বিনিয়োগে ইমারত নির্মাণ অনুমোদনে হয়রানি বন্ধ, ব্যবসায়ীদের হোল্ডিং কর ট্রেডলাইসেন্স নিয়ে অতীতের হয়রানি দূর করাই হবে নতুন মেয়রের বড় চ্যালেঞ্জ।

আইনজীবী একরামুল হুদা জানান, পৌরশহরে প্রতিদিন প্রায় লক্ষাধিক লোকের সমাগম ঘটে, কিন্তু সরকারি জায়গা থাকা সত্ত্বেও এখানে কোন গণশৌচাগার নেই। নতুন মেয়রের কাছে দাবি- সরকারি জায়গা দখলমুক্ত করে একটি গণশৌচাগার নির্মাণ করা হোক।

এদিকে পৌরসভার সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন বৈষম্যের শিকার ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। এই এলাকার উপজেলা গেইট (আশরাফ আলী পেট্রোল পাম্প) থেকে হাশিমিয়া মাদরাসা পর্যন্ত সড়কের বেহাল দশা সবারই জানা। কোমর-ব্যাথা এই এলাকার মানুষের নিত্যদিনের সঙ্গী। তাই এই এলাকার মানুষ নবনির্বাচিত পৌরপিতা মুজিবুর রহমানের কাছে দাবি জানিয়ে বলেছেন, কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়কের এই রাস্তাটি দ্রুততম সময়ে মেরামত ও সড়কের দুপাশে সড়কবাতিসহ ড্রেন নির্মাণ করা হলে এই ওয়ার্ডের প্রধান সমস্যাগুলো দূর হবে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক আশরাফ আজম কক্সবাজারের কথা বলতে গিয়ে বলেন, ‘পৌরসভার নতুন মেয়র যদি পৌরসভার মাস্টারপ্ল্যান অনুসরণ করে উন্নয়ন কার্যক্রম গ্রহণ করে, তাহলে একটি পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর নগর উপহার দেয়া সম্ভব’।

যোগাযোগ করা হলে পৌরসভার নব-নির্বাচিত মেয়র মুজিবুর রহমান এ প্রতিবেদককে জানান, ভোটাররা সতস্ফুর্তভাবে আমাকে তথা আওয়ামীলীগকে ভোট দিয়েছেন। বিপুলসংখ্যক ভোটের ব্যবধানে তারা আমাকে জয় উপহার দিয়েছেন। জনগণ পরিবর্তন চাই। অবহেলিত এই কক্সবাজারকে এগিয়ে নিতে আজ তাদের এই বিপ্লবী পরিবর্তন। তাদের সমস্যা কি তা আমার জানা আছে। কারণ গত দু’যুগ ধরে এসব বিষয়ে নাগরিকরা তাদের মুরব্বি হিসেবে আমার কাছে নালিশ করে আসছেন। তিনি বলেন, এই কক্সবাজার শুধু আমাদের সম্পদ নয়। এইটি সমগ্র বাংলাদেশের সম্পদ। সকলের মত মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও এই কক্সবাজার নিয়ে ভাবেন। বহিঃবিশ্বের কাছে একটি আধুনিক মডেল পৌরসভা হিসেবে কক্সবাজারকে পরিচিত করা আমার প্রধান উদ্দেশ্য। তিনি বলেন, ধীরে ধীরে সকল সমস্যার সমাধান করা হবে। পৌরসভায় বিনিয়োগ বাড়াতে আবাসন খাতে সকল হয়রানি দূর করা হবে। এছাড়া ব্যবসায়ীদের হয়রানি দূর করার জন্য বিশেষ সুবিধা প্রদান করা হবে বলে জানান মেয়র। পর্যায়ক্রমে কক্সবাজার পৌরসভাকে আধুনিক সিটি কর্পোরেশনে রূপান্তর করা হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন নবনির্বাচিত পৌরপিতা মুজিবুর রহমান।

আর্কাইভ

সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি রবি
« আগ    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০

শিরোনাম :